জেনে নিন চুমু খাওয়ার এই দুর্দান্ত কয়েকটি উপকারিতা, অবাক হবেন আপনিও!

অনেকেই ভালোবাসার প্রকাশ করে থাকেন চুমুর মাধ্যমে; তবে জানেন কি এটারও রয়েছে অনেক উপকারিতা? রইল বিস্তারিত প্রতিবেদন

1
119
জেনে নিন চুমু খাওয়ার এই দুর্দান্ত কয়েকটি উপকারিতা, অবাক হবেন আপনিও!
জেনে নিন চুমু খাওয়ার এই দুর্দান্ত কয়েকটি উপকারিতা, অবাক হবেন আপনিও!

ভালোবাসার প্রকাশ ঘটে থাকে চুম্বনের মাধ্যমে। একটি সম্পর্কের ক্ষেত্রে এই দিকটিকে একটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হিসেবেও মনে করা হয়ে থাকে। প্রেমিক-প্রেমিকা থেকে শুরু করে স্বামী-স্ত্রী সবার মধ্যেই রয়েছে চুম্বনের ভূমিকা। তবে আপনি কি জানেন এই চুমু খাওয়ারও রয়েছে বিশেষ কিছু উপকারিতা! শারীরিক থেকে মানসিক সমস্ত উপকারিতাই কিন্তু জানলে অবাক হবেন আপনি.. আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা সেই বিষয় নিয়েই বিস্তারিত আলোচনা করতে চলেছি। তাই মজাদার এই প্রতিবেদনটি ভুলেও মিস করবেন না। আর ভালো লাগলে অবশ্যই নিজের পার্টনারের সঙ্গে শেয়ার করে নেবেন নির্দ্বিধায়।

জেনে নিন চুমু খাওয়ার এই দুর্দান্ত কয়েকটি উপকারিতা, অবাক হবেন আপনিও!
জেনে নিন চুমু খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা । জানলে হয়তো অবাক লাগবে

7উদ্বেগ কমাতে দারুন কার্যকরী:

চুম্বন মানুষের শরীরের স্ট্রেস রিলিফ হিসেবে কাজ করে থাকে।চুমু খাওয়ার মুহূর্তেই মস্তিষ্কের কর্টিসলের (স্ট্রেস হরমোন) মাত্রা কমে যায়। এটি কিন্তু মানসিক স্বাস্থ্য উন্নত করতে এবং উদ্বেগ কমিয়ে দিতে দারুণ সাহায্য করে থাকে। তাই যদি এবার থেকে খুব উদ্বেগে থাকেন তাহলে নিজের পার্টনারের কাছ থেকে চুমু চেয়ে নিতে ভুলবেন না।

6দাঁতের স্বাস্থ্যরক্ষায়:

দাঁতের স্বাস্থ্য রক্ষাতেও কিন্তু চুম্বনের মুখ্য ভূমিকা রয়েছে। সাধারণত যখন কাউকে চুমু খাওয়া হয় তখন পরস্পরের লালা মিশে যায় এবং তাতেই দাঁত, মাড়ি আর মুখের সার্বিক স্বাস্থ্যের উন্নতি হয়। তাই একেবারে নিশ্চিন্তে থাকুন। চুম্বন আপনার কোন ক্ষতি করবে না বরং কাজেই লাগবে।

আরও পড়ুন- একবার খেয়ে দেখুন এই বিশেষ জিনিস, সহবাসের আগে আর প্রয়োজন হবে না অন্য ট্যাবলেট খাওয়ার!

5মন ভালো করার ওষুধ চুম্বন:

যদি কোন সময় আপনার মন খারাপ থাকে এবং সেই খারাপ মনকে আপনি একেবারে চাঙ্গা করে তুলতে চান তাহলে কিন্তু চুম্বনের থেকে বড় ওষুধ আর হয় না। আসলে এই সময়ে অক্সিটোসিন, ডোপামাইন আর সেরোটোনিন জাতীয় হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যায়। তাই মানুষের মন অনেকটাই সক্রিয় হয়ে যায় এবং কোন রকমের দুঃখ থাকে না। এবার থেকে মন খারাপ থাকলে পার্টনারের কাছ থেকে তবে চুমু চেয়ে নিন।

4রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে:

কাউকে চুমু খাওয়ার সময় শরীরের শিরা আর ধমনীগুলো প্রসারিত হয়, হৃদস্পন্দন ও সাধারণের তুলনায় অনেকটাই বেড়ে যায়। ফলস্বরূপ মানুষের শরীরে রক্ত চলাচল সঠিকভাবে বজায় থাকে আর কোন রকমের রক্তচাপ জনিত সমস্যা হয় না। তাই যদি আপনাদের রক্তচাপ জনিত সমস্যা থাকে তবে এবার থেকে ওষুধ হিসেবে কিন্তু নিজের পার্টনারকে চুম্বন করতে ভুলবেন না।

3মুখের ব্যায়ামের পক্ষে আদর্শ:

জানেন কি, চুমু খাওয়ার সময় আপনার মুখের 30টি পেশি সচল হয়ে ওঠে? ফলে মুখের একধরনের ব্যায়াম হয়ে যায়। পাশাপাশি চুমু খেলে প্রতি মিনিটে 26 ক্যালরি পর্যন্ত খরচ হতে পারে! কাজেই জিমে যাওয়ার উপকারিতা পাবেন চুমু খেয়েই, ভাবতে পারেন! এবার থেকে কিন্তু এই সুযোগ আর মিস করতে ভুলবেন না। অর্থাৎ শারীরিক ব্যায়াম হোক বা ওজন নিয়ন্ত্রণ সবকিছুই কিন্তু সম্ভব এই চুমুর দ্বারা।

আরও পড়ুন- আপনার পার্টনার আপনাকে কতটা পছন্দ করে? জেনে নিন তার মনের সমস্ত কথা!

2রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি:

ডিপ কিসের সময় পার্টনারের মুখের লালার সঙ্গে আপনার মুখের লালা মিশে যায়। ফলে আপনার শরীর নতুন ধরনের ব্যাকটেরিয়ার সঙ্গে পরিচিত হয়। কাজেই স্বাভাবিকভাবেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বৃদ্ধি পায়। বিষয়টি শুনতে অবাক লাগলেও একেবারেই কিন্তু সত্যি। মজাদার এই প্রতিবেদনটি তাই নিজের পার্টনারের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

1বয়সের ছাপ কমায়:

বহু মানুষের ক্ষেত্রেই কিন্তু অত্যন্ত কম বয়সে নানান রকমের শারীরিক সমস্যার কারণে বয়সের ছাপ লক্ষ্য করা যায় এবং ত্বকের পরিবর্তনও দৃশ্যমান হয়।। কিন্তু এই সমস্যার হাত থেকেও আপনাকে পার্টনারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা আর চুমু বাঁচাতে পারে। চুমু খেলে মুখে রক্ত সঞ্চালন বাড়ে, ফলে কোলাজেন উৎপাদনও বাড়ে। কাজেই মুখের ত্বক টানটান, সতেজ থাকে।