আপনিও কি নিজের সম্পর্ক নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন? তাহলে জেনে নিন সম্পর্ক ভালো রাখার সেরা কয়েকটি উপায়

যেকোনো সম্পর্কের ক্ষেত্রেই যেকোনো বিশেষ দিক মেনে চলতে হয়.. আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আলোচনা করব কিভাবে আপনারা নিজেদের সম্পর্ক ভালো রাখতে পারবেন।

0
118
আপনিও কি নিজের সম্পর্ক নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন? তাহলে জেনে নিন সম্পর্ক ভালো রাখার সেরা কয়েকটি উপায়
আপনিও কি নিজের সম্পর্ক নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন? তাহলে জেনে নিন সম্পর্ক ভালো রাখার সেরা কয়েকটি উপায়

এই পৃথিবীতে প্রতিটা জিনিসই একে অপরের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। গাছপালা থেকে শুরু করে মানুষ অথবা পশুপাখি সবার মধ্যেই কিন্তু আপনার একটা নির্দিষ্ট সম্পর্কের জাল লক্ষ্য করবেন। একটা শিশু যখন জন্মগ্রহণ করে তখন তার বাবা-মা তাকে হামাগুড়ি দেওয়া থেকে শুরু করে হাঁটাচলা করা অথবা পড়াশোনা করিয়ে বড় করে তোলে। ফলস্বরূপ মাতা পিতার সঙ্গে শিশুর অবিচ্ছেদ্য সম্পর্ক তৈরি হয়। ঠিক তেমনভাবেই সেই শিশুটি যখন স্কুলে অথবা কলেজে যায় তখন সেখানেও সহপাঠীদের সঙ্গে তাদের এক বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

পরবর্তীতে ঠিক একই রকম ভাবে গড়ে ওঠে প্রেম সম্পর্ক বা বিবাহ সম্পর্ক। তবে সম্পর্ক যাই হোক না কেন প্রতিটি সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার একটা নির্দিষ্ট চাবিকাঠি রয়েছে যা প্রত্যেকটা মানুষের জেনে নেওয়া প্রয়োজন! আপনারা যদি এই বিশেষ দিকগুলো জেনে নিতে না পারেন তাহলে কিন্তু কোন সম্পর্কই খুব বেশিদিন স্থায়ী হবে না আপনাদের জীবনে। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা সেই বিষয় নিয়েই বিস্তারিত আলোচনা করব তাই অনুরোধ রইল প্রতিবেদনটি শেষ পর্যন্ত পড়ে নেবেন।

আপনিও কি নিজের সম্পর্ক নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন? তাহলে জেনে নিন সম্পর্ক ভালো রাখার সেরা কয়েকটি উপায়
আপনিও কি নিজের সম্পর্ক নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন? তাহলে জেনে নিন সম্পর্ক ভালো রাখার সেরা কয়েকটি উপায়

আরও পড়ুন- জেনে নিন চুমু খাওয়ার এই দুর্দান্ত কয়েকটি উপকারিতা, অবাক হবেন আপনিও!

12সততা বজায় রাখুন:

যেকোনো সম্পর্কের ক্ষেত্রেই কিন্তু আপনাকে সততা বজায় রাখতে হবে। আপনি যদি অপর পক্ষের সঙ্গে সৎ থাকতে না পারেন তাহলে কিন্তু কখনোই সেই সম্পর্ক আপনি টিকিয়ে রাখতে পারবেন না। সততা হচ্ছে একটা সম্পর্কের মূল চাবিকাঠি যা একে অপরের উপর নির্ভর করে গড়ে ওঠে।

11নিজস্ব অনুভূতি প্রকাশ করতে শিখুন:

অনেকেই আছে যারা নিজেদের সুখ দুঃখ অথবা ক্রোধকে চেপে রেখে দেয়। এটি কিন্তু একেবারেই ভুল। আপনাকে অবশ্যই নিজের পার্টনারের কাছে নিজের অনুভূতি প্রকাশ করার সম্পর্কে জানতে হবে।বাবা – মা কে বলা তাদের জন্য আমাদের হৃদয়ের অনুভূতি কী ? সন্তান , স্বামী – স্ত্রী সকলের সামনে তোমার হৃদয়ে তাদের স্থান কী ,তুমি কতটা তাদের জন্য ভাবো ,কতটা স্নেহ বা সন্মান কর তাদের প্রতিদিন যদি এই ধারণা গুলি আপনারা ব্যক্ত করতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনাদের সম্পর্ক মজবুত হয়ে উঠবে।

10সুন্দর মুহূর্ত কাটানোর চেষ্টা করুন:

সর্বদা নিজের পরিবার বা নিজের সঙ্গীকে নিয়ে কিছু সুন্দর মুহূর্ত কাটানোর চেষ্টা করুন কারণ এগুলোই আপনাকে সঠিকভাবে বেঁচে থাকতে সাহায্য করবে জীবনে।প্রিয়জনরা যারা সর্বদা আমাদের পাশে রয়েছে , তাদের জন্য সময় বের করার কথা আমরা অনেক সময় ভাবতে ভুলে যাই । ফলে সম্পর্ক গুলি আলগা হতে শুরু করে । রোজ যদি আমরা আমাদের প্রিয়জনদের সাথে কিছুটা সময় কাটাই , একে অপরের সাথে গভীরভাবে ও খোলাখুলিভাবে যুক্ত থাকি , তাহলে আমাদের সম্পর্কগুলি পুনরায় সতেজ হবে,তাতে প্রাণ ফিরে আসবে ।

আরও পড়ুন- একবার খেয়ে দেখুন এই বিশেষ জিনিস, সহবাসের আগে আর প্রয়োজন হবে না অন্য ট্যাবলেট খাওয়ার!

9একে অপরের প্রতি সহানুভূতিশীল হন:

একটা সম্পর্কের মধ্যে একে অপরের প্রতি সহানুভূতিশীল হওয়াও কিন্তু ভীষণ রকমের প্রয়োজনীয়।যখন দেখি আমাদের ভেতরের অবস্থা সম্পর্কের অপরপক্ষে থাকা মানুষরা বুঝেও বুঝতে চাইছে না বা আমরা বোঝাতে পারছি না , তখন সম্পর্কের মধ্যে দ্বন্ধ তৈরী হয়। আর এই দ্বন্দ্ব খুব বেশি বেড়ে গেলে বিচ্ছেদে পরিণত হয়ে যায়। তাই সহানুভূতি বজায় রাখা ভীষণ রকম ভাবে দরকারি যা কখনোই এড়িয়ে চলা উচিত নয়।

8বিশ্বাস:

যেকোনো সম্পর্কে এই বিশ্বাস ধরে রাখাটাকে আপনাকে চেষ্টা করতেই হবে। কারণ একে অপরের প্রতি যদি বিশ্বাস না থাকে কোনোভাবেই সেই সম্পর্ক একটা ভাল রূপ ধারণ করতে পারবে না। সুতরাং একে অপরের বিশ্বাসের মর্যাদা রাখুন এবং যতটা সম্ভব ভালো সময় কাটান।

7সঙ্গীকে গুরুত্ব দিন:

যে কোন সম্পর্কের ক্ষেত্রেই অপর পক্ষের মানুষকে গুরুত্ব দেওয়া বাধ্যতামূলক। যদি আপনি এই গুরুত্ব না দিতে পারেন তাহলে কিন্তু অপর পক্ষ একাকীত্ব বোধ করতে পারে এবং আপনার থেকে ধীরে ধীরে দূরত্ব তৈরি করতে পারে।আমরা অনেক সময় দেখে থাকি আমাদের প্রিয়জনদের কিছু স্বপ্ন নিয়ে আমরা ঠাট্টা ও বিদ্রুপ করি । ফলে তার ভেতরের আঘাত আমরা দেখতে পাই না । এভাবেই সম্পর্কগুলি ধীরে ধীরে সরে যেতে থাকে হৃদয় থেকে।

আরও পড়ুন- আপনার পার্টনার আপনাকে কতটা পছন্দ করে? জেনে নিন তার মনের সমস্ত কথা!

6স্বাধীনতা বজায় রাখুন:

সম্পর্ককে খাঁচায় বন্দি পাখির মতন নয় বরং মুক্ত আকাশে উড়তে পারবে এমন পাখির মতো রাখুন ।প্রতিটা সম্পর্কের মধ্যেই একে অপরকে স্পেস বা স্বাধীনতা দেওয়া অত্যন্ত জরুরী । জোর করে নিজের মতামত চাপিয়ে দেওয়ার ফলে অনেক সম্পর্কই শাড়শীতে আটকানো মাছির মত ছটফট করে। তাই এবার থেকে নিজেদের সম্পর্কে এই ভুল কিন্তু আর কখনো করবেন না।

5একে অপরের প্রশংসা করুন:

আপনাকে অবশ্যই কিন্তু একে অপরের প্রশংসা করে সেই সম্পর্ককে আরো মজবুত করতে হবে। বহু মানুষ রয়েছেন যারা নিজেদের প্রিয়জনের কাছ থেকে কিন্তু নিজের সম্পর্কে প্রশংসা শুনতে দারুণ পছন্দ করেন। বিশেষ করে মহিলারা এই ক্ষেত্রে অগ্রগণ্য। তাদের সৌন্দর্য থেকে শুরু করে কাজকর্মের প্রশংসা করলেই কিন্তু আপনারা সহজেই তাদের মন জয় করে নিতে পারবেন।

4উপহার দিন:

নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সকলেই কিন্তু উপহার পেতে বেশ পছন্দ করে থাকেন। আপনারা নিশ্চিন্তে নিজের প্রিয়জনের বিশেষ দিনগুলোতে অথবা তাকে সারপ্রাইজ দেওয়ার মতন করে কিন্তু উপহার নিবেদন করতে পারেন। উপহারে তাদের পছন্দের কোনো জিনিস যেমন বিশেষ কোনো রকমের ফুল অথবা কোন রকমের খাবার বা card রাখতে পারেন।

3ক্ষমা করতে শিখুন:

একটা সম্পর্কে ছোটখাটো ভুল ত্রুটি হতেই পারে তবে সেটির জন্য রাগ ধরে রাখবেন না। বরং একে অপরকে ক্ষমা করে সে সম্পর্কে এগিয়ে যেতে শিখুন।সবচেয়ে বড় ধর্ম হল ক্ষমার ধর্ম । ছোট ছোট বিষয় নিয়ে অনেকেই দীর্ঘদিন যাবৎ সম্পর্কের প্রাচীর কে করাঘাত করে । অতীতের কোন এক ভুল কে সামনে রেখে বর্তমানের সুন্দর মুহূর্তগুলোকে নষ্ট করে তোলে । একটি সুন্দর সম্পর্ক ধরে রাখতে চাইলে কিন্তু এই কাজগুলো করলে চলবে না।

আরও পড়ুন- পার্লারে না গিয়েই বাড়িতে বসে পেয়ে যান উজ্জ্বল ও চকচকে ত্বক, ট্রাই করে দেখুন এই বিশেষ ঘরোয়া টোটকা

2একে অপরের যত্ন নিন:

বিশ্বাস এবং সততার পরেই আপনাকে কিন্তু একে অপরের যত্ন নেওয়ার উপরেও নজর রাখতে হবে। যদি আপনারা একে অপরের যত্ন নিতে না পারেন তাহলে কিন্তু একটা বিরূপ মনোভাব চলে আসবে। একটা ছোট চারা গাছকে যেমন বিভিন্ন রকম ভাবে যত্ন করে সেটাকে বড় করে তোলা হয়। ঠিক তেমন ভাবেই আপনাকে নিজেদের সম্পর্ককে যত্ন করে, একে অপরের খেয়াল রেখে তা এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

1ত্যাগ করতে শিখুন:

একটা সম্পর্ক সুন্দরভাবে টিকিয়ে রাখতে গেলে আপনাদের কিন্তু ছোটখাটো বিষয়গুলোকে ত্যাগ করতে শিখতে হবে। যদি এই কাজটি আপনারা করতে না পারেন তাহলে কিন্তু আপনাদের সম্পর্ক কখনোই গভীর হবে না।