কিভাবে স্নান করলে ভালো থাকবে চুল? কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা, জেনে নিন!

Haircare Tips: চুলের সমস্যা নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন? জেনে নিন কিছু সাধারণ নিয়ম!

0
92
কিভাবে স্নান করলে ভালো থাকবে চুল? কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা, জেনে নিন!
কিভাবে স্নান করলে ভালো থাকবে চুল? কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা, জেনে নিন!

বর্তমান সময়ে কম বেশি প্রত্যেক মহিলা রাই কিন্তু চুলের সমস্যা নিয়ে বেশ চিন্তায় রয়েছেন।। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা তাই এই সমস্ত ভুক্তভোগী মহিলাদের সাথে কিছু টোটকা শেয়ার করে নিতে চলেছি যা খুব সাধারণভাবেই আপনারা দৈনন্দিন অভ্যাসে পরিণত করতে পারেন।। এই অভ্যাসগুলি কে সঠিক ভাবে কাজে লাগালে আপনার চুল কখনোই ড্যামেজ হবে না বরং তা আরো সুন্দর হয়ে উঠবে। স্নান করার সময় বা শ্যাম্পু করার সময় কিছু নির্দিষ্ট স্টেপ সবাইকে মেনে চলতে হয়। অনেক ক্ষেত্রেই আমাদের ছোটবেলাকার কিছু বদ অভ্যাস থেকে যা যা হয় তো বড় হওয়ার পরেও পরিবর্তন হয় না এবং ফলস্বরূপ তার প্রভাব পড়ে চুলের উপরে। সেই ছোটখাটো বিষয়গুলি নিয়েই আমরা এই প্রতিবেদনে আলোচনা করব। একটি সুন্দর এবং সিল্কি চুল পেতে চাইলে আপনাদের অবশ্যই এই বিষয়গুলিকে খেয়াল রাখতে হবে। চলুন তাহলে সময় নষ্ট না করে জেনে নেওয়া যাক এই বিশেষ কয়েকটি সেরা শাওয়ার টিপস:

শ্যাম্পু করার আগে চুলে স্টিম নিন:

আমাদের মাথার রোমকূপ গুলো প্রায়শই তেল এবং ময়লা দিয়ে আটকে থাকে আর এগুলো পরিষ্কার করার সবথেকে ভালো উপায় হচ্ছে স্টিম করে নেওয়া।। এটি করার জন্য একটা তোয়ালে গরম জলে ভিজিয়ে নিন এবং অতিরিক্ত জল মুছে ফেলুন। তারপর এই তোয়ালেটি মাথার চারপাশে জড়িয়ে রাখুন এবং মিনিট ২০ সময় পরে খুলে দিন।

শ্যাম্পুর আগে ম্যাসাজ করুন:

চুল স্টিম করার পরে কয়েক মিনিটের জন্য আঙ্গুল দিয়ে মাথার ত্বকে আপনাকে আলতো ভাবে মাসাজ করতে হবে যাতে এর মধ্যে থেকে সমস্ত ময়লা এবং জমাট বাধা কণা দূর হয়ে যায়।। এরপর একটু ঠান্ডা জল ব্যবহার করে চুলের কিউটিকল গুলোকে খোলা রাখতে সাহায্য করুন এবং সমস্ত আদ্রতা এটি থেকে বের করুন। এই তিনটি ধাপ ফলো করলে কিন্তু আপনার চুল ফ্রিজ হওয়া থেকে অনেকটা আটকাবে এবং খুবই মসৃণ আর চকচকে ভাব ধারণ করবে।

শুধুমাত্র মাথার ত্বকের শ্যাম্পু প্রয়োগ করুন:

শ্যাম্পু করার উদ্দেশ্য হলো মাথার স্ক্যাল্প থেকে মৃত ময়লা বা কোষ অপসারণ করা। কিছুটা পরিমাণ শ্যাম্পু নিয়ে তাই মাথার ত্বকে সরাসরি মাসাজ করুন যতক্ষণ না এটি হালকা হয়ে যাচ্ছে।

আলতোভাবে ম্যাসাজ করুন:

সম্পূর্ণ বৃত্তাকার গতিতে মাথার ত্বকে এই শ্যাম্পু নিয়ে আপনারা ম্যাসাজ করবেন আলতোভাবে। এর ফলে আপনার চুলের ফলিকল গুলো রক্ত সঞ্চালন উন্নত করতে এবং চুলের বৃদ্ধি বাড়াতে সহায়তা করবে।

চুল ধোয়ার নিয়ম:

প্রতিদিন কিন্তু কখনোই চুল ধরবেন না। সপ্তাহে অন্ততপক্ষে দুই থেকে তিন দিন ওয়াশ করুন।

কন্ডিশনার এর জন্য টিপস:

স্নান করা ঠিক আগে চুলকে তেল দিয়ে কন্ডিশন করবেন এবং ম্যাসাজ করবেন। নারকেল বাদাম বা অলিভ অয়েল আপনারা এই কাজে ব্যবহার করতে পারেন।। এর ফলে আপনার চুল নরম ঝলমলে এবং ফ্রিজ মুক্ত হয়ে যাবে এবং চুলের ভেতর থেকে পুষ্টি যোগাবে।

কন্ডিশনারের আগে তোয়ালে দিয়ে শুকিয়ে নিন:

চুলে কন্ডিশনের প্রয়োগ করার আগে অবশ্যই ফ্রিজ মুক্ত করার জন্য এটাকে ভালোভাবে শুকিয়ে নেবেন। আপনার চুল শ্যাম্পু করার পরে আপনার মাথার চারপাশে একটা তোয়ালে মুড়ে তারপর কন্ডিশনার লাগান। কন্ডিশনারটি আপনার তোয়ালে শুকনো চুলের মধ্যে আরো সহজে শোষিত হবে এবং এটিকে জমে যাওয়া থেকে রক্ষা করবে। হাইড্রেটিং কন্ডিশনার শোষণ করার জন্য তত বেশি জায়গা থাকবে যত জল শোষণ হবে।

মাথার ত্বকে কন্ডিশনার লাগাবেন না:

আপনারা কিন্তু ভুল করেও মাথার ত্বকে কখনো কন্ডিশনার প্রয়োগ করবেন না কারণ এতে ছিদ্রগুলো আটকে যাবে এবং আপনাদের চুলের বৃদ্ধি ব্যাহত হবে।। যদি কোনো কারণে সেটা লেগেও যায় তাহলে অবশ্যই সময় করে ধুয়ে ফেলবেন।

চুল শুকানোর জন্য টিপস:

কোন রকমের টেলি ক্লথ তোয়ালে বা সেরকম কোন জিনিস চুল শুকানোর জন্য ব্যবহার করবেন না কারণ এতে চুলের আদ্রতা কমে অতিরিক্ত জল বেরিয়ে যাবে এবং আপনার চুলগুলো কুঁচকে বা ভেঙে যেতে পারে। এর জন্য আপনারা মাইক্রো ফাইবার তোয়ালেবা সুতির কোন কাপড় ব্যবহার করতে পারেন। বেশিরভাগ মহিলারাই চুল শুকানোর সময় অত্যন্ত জোরে জোরে সেটিকে ঘষে থাকেন যা খুবই ক্ষতিকর। অবশ্যই এই বিষয়টি খেয়াল রাখুন। কখনোই চুল শুকানোর জন্য ব্লো ড্রায়ার ব্যবহার করবেন না। এতে হিট স্টাইলিং এর জন্য চুলগুলো ভঙ্গুর হয়ে পড়ে এবং খুব দ্রুত ড্যামেজ হয়ে যায়।

ব্যাস এই কয়েকটি টিপস মাথায় রাখলেই হয়ে যাবে আপনার সমস্ত সমস্যার সহজ সমাধান। তাহলে এবার থেকে আর আপনাকে ড্যামেজ চুল নিয়ে কোন চিন্তা করতে হবে না।