Health Tips : জেনে নিন শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর কিছু দুর্দান্ত টিপস, উপকার পাবেন সবাই

2
112
শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর কিছু দুর্দান্ত টিপস
শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর কিছু দুর্দান্ত টিপস

বর্তমান সময়ে ৮ থেকে ৮০ প্রত্যেক মানুষের শরীরে কিছু-না-কিছু রোগ বাসা বেঁধে রয়েছে যা দৈনন্দিন কর্মব্যস্ত জীবনে বিঘ্ন সৃষ্টি করে। তাই যদি আপনিও নিজের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে চান এবং ভাবছেন যে কিভাবে আপনার শরীরকে অসুস্থতার বিরুদ্ধে লড়াই করানো যায় তাহলে অবশ্যই আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটা মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে।। সাধারণ কিছু খাদ্য তালিকায় এবং জীবনধারার পরিবর্তন আপনার শরীরে দারুন বদলানতে সক্ষম। এই সমস্ত পরিবর্তনগুলি আপনাকে ক্ষতিকারক প্যাথোজেন বা রোগ সৃষ্টিকারী জীবের বিরুদ্ধে লড়াই করতেও সাহায্য করবে। প্রাকৃতিকভাবে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করার জন্য আজকের এই প্রতিবেদনে আমরা কিছু টিপস শেয়ার করে নেব। চলুন দেখে নেওয়া যাক।

১) পর্যাপ্ত ঘুম:

পর্যাপ্ত ঘুম
পর্যাপ্ত ঘুম

ঘুমের সাথে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার যোগাযোগ বহু সময়ের। যদি আপনি সময়মত না ঘুমান বা পরিমাণ এর তুলনায় কম ঘুমিয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যেতে পারে। ১৬৪ জন সুস্থ প্রাপ্তবয়স্কের উপর একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যারা প্রতিরাতে 6 ঘন্টায় কম ঘুমায় তাদের ঠান্ডা লাগার সম্ভাবনা বেশি। ( Boost immunity) প্রাপ্তবয়স্কদের মোটামুটি ৭ থেকে ৮ ঘন্টা আর কিশোর কিশোরীদের মোটামুটি 8 থেকে 10 ঘণ্টা এবং ছোট বাচ্চাদের ১৪ ঘণ্টা পর্যন্ত ঘুমের প্রয়োজন। যদি আপনার ঘুমের সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই ফোন বা কম্পিউটার কখনোই ঘুমের আগে ব্যবহার করবেন না। চেষ্টা করবেন প্রতিদিন একই সময়ে ঘুমোনোর।

২) উদ্ভিজ্জ খাবার গ্রহণের চেষ্টা করুন:

উদ্ভিজ্জ খাবার
উদ্ভিজ্জ খাবার

যতটা সম্ভব ফল, শাকসবজি ,বাদাম, বীজ এবং লেবুর মতো উদ্ভিদের খাওয়ার গ্রহণ করার চেষ্টা করুন। এগুলোর মধ্যে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা রোগ জীবাণুর বিরুদ্ধে আপনাকে লড়াই করার শক্তি দেবে। দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহ রোগ দূর হয়ে যাবে। উদ্ভিদের খাবারের ফাইবার আপনার অন্ত্রের মাইক্রোবায়োম বা আপনার অন্ত্রের স্বাস্থ্যকর ব্যাকটেরিয়া সম্প্রদায়কে খাওয়ায়। এটি অনাক্রম্যতা উন্নত করতে পারে এবং ক্ষতিকারক প্যাথোজেন গুলোকে আপনার শরীরের প্রবেশ করা থেকে বিরত রাখতে সাহায্য করে।

৩) স্বাস্থ্যকর ফ্যাট গ্রহণ করুন:

Healthy Fat
Healthy Fat

অলিভ অয়েল এর মতো স্বাস্থ্যকর চর্বি আপনারা গ্রহণ করুন যা আপনাদের শরীরে প্যাথোজনের প্রতি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করবে।। অলিভ অয়েল হৃদরোগ এবং টাইপ টু ডায়াবেটিসের মতো রোগের ঝুঁকি হ্রাস করে দেয়। ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড যেমন স্যামন এবং চিয়া বীজ প্রদাহের বিরুদ্ধে লড়াই করে।।

৪) প্রবায়োটিক সম্পূরক গ্রহণ করুন:

প্রবায়োটিক সম্পূরক
প্রবায়োটিক সম্পূরক

এই খাবারগুলির মধ্যে রয়েছে দই, কিমচি ,কেপির এবং নাটো। এছাড়াও গাজানো দুধ পান করতে পারেন। ১২৬টি শিশুর উপর তিন মাসের একটি গবেষণায় দেখা গেছে যারা দৈনিক মাত্র 70 মিলি গাজানো দুধ পান করে তাদের শৈশবকালীন সংক্রামক রক্ষায় কুড়ি শতাংশ কম ছিল।

৫) যোগ করা শর্করার পরিমাণ কমান:

শ্বেতসার জাতীয় খাবার ও কার্বোহাইড্রেট
শ্বেতসার জাতীয় খাবার ও কার্বোহাইড্রেট

সাম্প্রতিক বৈজ্ঞানিকদের মত অনুসারে যোগ করা শর্করা এবং পরিশোধিত কার্বোহাইড্রেট অতিরিক্ত ওজন এবং স্থূলতা বাড়াতে সাহায্য করে।। প্রায় এক হাজার লোকের উপর একটি পর্যবেক্ষণ মূলক গবেষণায় দেখা গেছে স্থূলতায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের যাদের ফ্লু ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছিল তাদের স্থূলতাহীন ব্যক্তিদের তুলনায় ফ্লু হওয়ার সম্ভাবনা দ্বিগুণ ছিল যারা ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছিলেন। চিনি খাওয়া কমালে প্রদাহ হ্রাস হয়ে যাবে এবং ওজন কমতে বা টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকিও কমে যাবে।

৬) ব্যায়ামের সঙ্গে যুক্ত থাকুন:

ব্যায়াম
ব্যায়াম

দীর্ঘায়িত নয় মাঝারি ব্যায়াম করতে পারেন। এতে আপনার ইমিউন সিস্টেম অ্যাক্টিভ থাকবে এবং কার্যকারিতা বাড়বে। এই ব্যায়াম গুলির মধ্যে রয়েছে দ্রুত হাটা, স্থির ভাবে সাইকেল চালানো, জগিং এবং সাঁতার কাটা।

৭) হাইড্রেটেড থাকার চেষ্টা করুন:

How To Keep Skin Hydrated In Summers
How To Keep Skin Hydrated In Summers

ডিহাইড্রেশন প্রতিরোধ করা আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এটি মাথা ব্যথা থেকে শুরু করে শারীরিক কর্ম ক্ষমতা অক্ষম হয়ে যাওয়া অথবা অতিরিক্ত মেজাজ বা হার্ট আর কিডনির সমস্যার কারণ হতে পারে। তাই এই জটিল অসুখগুলি রোধ করার জন্য আপনাকে অবশ্যই ডিহাইড্রেশন প্রতিরোধ করতে হবে। তাই অতিরিক্ত পর্যাপ্ত পরিমাণে জল পান করুন এবং সময়মতো পান করুন।

৮) মানসিক চাপমুক্ত থাকুন:

মানসিক চাপ
মানসিক চাপ

সুস্থ স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে আপনাকে স্ট্রেস এবং উদ্বেগের মাত্রা কমিয়ে ইমিউনকে বাড়াতে হবে।।( Boost immunity) আপনার স্ট্রেস পরিচালনা করতে সাহায্য করতে পারে ধ্যান, যোগ ব্যায়াম থেকে শুরু করে অনন্য মনশীলতা অনুশীলনের মতন কাজ গুলি। আপনি চাইলে একজন লাইসেন্স প্রাপ্ত পরামর্শদাতার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।