খুব শীঘ্রই বাজারে ফিরতে চলেছে রতন টাটার স্বপ্নের গাড়ি NANO, জেনে নিন নতুন এডিশনে কি কি ফিচার্স থাকছে?

একটা সময় ভারতীয় গাড়ির বাজারে বেশ ধুমধাম করেই রতন টাটার স্বপ্নের গাড়ি NANO এসেছিল.. কিন্তু বিশেষ কোন সাফল্য লাভ করতে না পারায় কয়েক বছরের মধ্যেই উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায় এই গাড়ির.. তবে খুব শীঘ্রই আবার নতুনরূপে বাজারে ফিরতে চলেছে এটি!

0
135
খুব শীঘ্রই বাজারে ফিরতে চলেছে রতন টাটার স্বপ্নের গাড়ি NANO, জেনে নিন নতুন এডিশনে কি কি ফিচার্স থাকছে?
খুব শীঘ্রই বাজারে ফিরতে চলেছে রতন টাটার স্বপ্নের গাড়ি NANO, জেনে নিন নতুন এডিশনে কি কি ফিচার্স থাকছে?

সাধারণ মধ্যবিত্ত মানুষের নিজেদের একটি গাড়ি কেনার স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে ছোটখাটো চেহারার NANO গাড়িটির উদ্ভাবন হয়েছিল। তবে জন্ম লগ্ন থেকেই ক্রমাগত বিতর্কের মুখোমুখি হয়ে এসেছে এই গাড়িটি। জানা যায় শিল্পপতি রতন টাটার এই গাড়িটি অত্যন্ত সাধের ছিল। প্রায় এক দশকের বেশি আগে লঞ্চ হওয়া এই গাড়িটি নিয়ে কম ঝামেলা হয়নি প্রথম থেকেই। প্রথমদিকে ঠিক হয়েছিল পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলার সিঙ্গুরে গড়ে উঠবে ন্যানো কারখানা। কিন্তু সিঙ্গুরের মাটিতে জমি জটের কারণে আর ন্যানোর জন্ম হয়নি।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাংলা তথা জাতীয় রাজনীতিতে দীর্ঘ সময় ধরে ব্যাপক টানাপোড়েন চলেছিল। শেষমেষ ২০০৮ সাল নাগাদ গুজরাটে এই গাড়িটি লঞ্চ করা হয়। তবে সবকিছু ঠিকঠাক থাকলেও লঞ্চের পরে এই গাড়ি আর ভারতীয় বাজারে খুব একটা সাফল্যের মুখ দেখেনি। ধীরে ধীরে মন্দার মুখে পড়ছিল এই গাড়ির ব্যবসা। শেষমেষ এই গাড়িটির উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। তবে সম্প্রতি শোনা যাচ্ছে একেবারে নতুন রূপে এই গাড়ির আবার আবির্ভাব হতে চলেছে।

বিভিন্ন সূত্রের খবর অনুযায়ী,দারুণ রকমের ডিজাইন নিয়ে এবং নতুন রুপে বাজারে আসতে পারে টাটা ন্যানো। তবে এবার আর জ্বালানি নয়, নতুন ন্যানো লঞ্চ হবে বৈদ্যুতিক মোটরের সাথে। একবার চার্জে 315 কিমি মাইলেজ দিতে সক্ষম গাড়িটি। শক্তিশালী ব্যাটারী প্যাক মাইলেজ এবং পারফরম্যান্স উভয়ই প্রদান করবে। গাড়িটির দাম মোটামুটি ৫ থেকে ৭ লক্ষের মধ্যে রাখতে পারে সংস্থা। আসুন এবার এই গাড়িটির নতুন মডেলের কিছু ফিচারস বিস্তারিতভাবে জেনে নেওয়া যাক।

  1. টাটা ন্যানোর এই নতুন এডিশনের মধ্যে বেশ শক্তিশালী ব্যাটারি ব্যবহার করা হবে।।
  2. Tata Nano Electric এ 315km রেঞ্জ রয়েছে, যা 2023-এর অন্যান্য গাড়ির থেকে অনেকখানি এগিয়ে। সুতরাং এর বৈদ্যুতিক অবতার যে দারুন হবে তাতে সন্দেহ নেই।।
  3. টাটা ন্যানোতে ফাস্ট চর্জিংয়ের সুবিধাও দেওয়া হবে। সাধারণ চার্জারের সাহায্যে 5 থেকে 6 ঘণ্টায় গাড়িটিকে চার্জ করা যাবে।
  4. টাটা ন্যানোর এই নতুন মডেলের নিরাপত্তার দিকেও জোরদার খেয়াল রাখা হয়েছে।গাড়িতে চারটি এয়ারব্যাগ থাকবে। এছাড়া অটোম্যাটিক হেডল্যাম্প, ক্র্যাশ সেন্সর সুবিধা দেওয়া হয়েছে। পার্কিং সেন্সর এবং ক্রুজ নিয়ন্ত্রণ ফিচারসও থাকতে পারে বলে জানা যাচ্ছে।