চলন্ত ট্রেনে দ্রুত ফোনের ব্যাটারি শেষ হয়ে যায় কেন? কারণ জানলে অবাক হবেন আপনিও!

ট্রেনে ভ্রমণ করাকালীন আপনারা হয়তো অনেকেই লক্ষ্য করেছেন যে ফোনের ব্যাটারি পার্সেন্টেজ দ্রুত নামতে থাকে.. কিন্তু এই ঘটনার পেছনের আসল কারণ কিন্তু অনেকেই জানেন না। নজর রাখুন এই প্রতিবেদনে।

0
144
চলন্ত ট্রেনে দ্রুত ফোনের ব্যাটারি শেষ হয়ে যায় কেন? কারণ জানলে অবাক হবেন আপনিও!
চলন্ত ট্রেনে দ্রুত ফোনের ব্যাটারি শেষ হয়ে যায় কেন? কারণ জানলে অবাক হবেন আপনিও!

পাঠক বন্ধুদের মধ্যে যারা দূরপাল্লার ট্রেনে সফর করেছেন তারা সকলেই জানেন যে খুব দ্রুত এই সময়ে ফোনের ব্যাটারি পার্সেন্টেজ নেমে যায়। যারা হয়তো এখনো অবধি এই বিষয়টি লক্ষ্য করেননি তারা এবারে যাত্রা চলাকালীন নজরে রেখে দেখবেন। যদিও এই ব্যাটারি দ্রুত নেমে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে অনেকেই অবগত নয়। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা সেই বিষয় নিয়েই আলোচনা করতে চলেছি। যারা চলন্ত ট্রেনে মোবাইলের ব্যাটারি কমে যাওয়া নিয়ে সমস্যায় পড়েন তারা অবশ্যই কিন্তু এই প্রতিবেদনটি মিস করবেন না।

চলন্ত ট্রেনে মোবাইলের ব্যাটারি তাড়াতাড়ি কমে যাওয়ার কারণ কি?

  • চলন্ত ট্রেনে মোবাইলের ব্যাটারি তাড়াতাড়ি কমে যাওয়ার কারণ হলো এই সময়ে বিভিন্ন এলাকার নেটওয়ার্ক জোনের মধ্যে দিয়ে আমাদের মোবাইলের নেটওয়ার্ক চলাচল করে। যার ফলস্বরূপ স্বাভাবিকভাবেই আমাদের ফোনের নেটওয়ার্ক একটু বেশি ব্যাটারি খরচ করে অন্য সময়ের তুলনায়।মোবাইল কাছাকাছি নেটওয়ার্কগুলির খোঁজ করে ও সেখান থেকে নেটওয়ার্ক নেয়। যদিও যাত্রার সময় পাওয়া এই নেটওয়ার্কটি কিছু সময়ের জন্য কাছাকাছি এসে যায়। তাই আমাদের ফোন বারবার এমন নেটওয়ার্ক পরিবর্তন করতে থাকে যা বেশি ব্যাটারি খরচ করে দেয়।
  • ট্রেনে সফর করাকালীন অনেকেই কিন্তু জিপিএস অন রাখেন মোবাইলে। জিপিএস অন রাখার দরুণ মোবাইলের ব্যাটারি তাড়াতাড়ি নিচে নামতে থাকে।
  • আপনি যদি ভ্রমণের সময় ইন্টারনেট ব্যবহার করেন, তাহলে ফোনের ব্যাটারি দ্রুত শেষ হয়ে যায়। কারণ এই ক্ষেত্রে ফোনটিকে বারবার ডেটা প্রদানকারী কোম্পানি পরিবর্তন করতে হয়।।

Read More: যেকোনো ট্রেনের এসি কোচ কেন সর্বদা মাঝবরাবর রাখা হয়? কারণ জানলে অবাক হবেন আপনিও!

তাই এবার থেকে দূরপাল্লার ট্রেনে সফর করার সময় যদি কোনো কারণে আপনাদের ফোনের ব্যাটারি পার্সেন্টেজ তাড়াতাড়ি নামতে থাকে সেক্ষেত্রে অবশ্যই জিপিএস বন্ধ করে দিতে পারেন বা আপনার ফোনের ইন্টারনেট পরিষেবা কিছু সময়ের জন্য বন্ধ রাখতে পারেন। তাহলেই দেখবেন আপনার সমস্যার অনেকটা সমাধান হয়ে গিয়েছে।