২০০০ টাকার নোট জমা দেওয়ার সময়সীমা বাড়লো, জেনে নিন কবে রয়েছে শেষ তারিখ!

২০০০ টাকার নোট জমা দেওয়ার শেষ তারিখ কত? কি বলছে রিজার্ভ ব্যাংক ?

1
186

আপনিও কি ২০০০ টাকার নোটের মালিক এখনো পর্যন্ত? এখনো পর্যন্ত টাকা বদলে নেননি ব্যাংক থেকে? তাহলে আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি আপনার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। চলুন তাহলে দেরি না করে জেনে নেওয়া যাক বিস্তারিত। ২০০০ টাকার নোট জমা দেওয়ার সময়সীমা বাড়ালো রিজার্ভ ব্যাংক(Reserve Bank of India)। ৩০ শে সেপ্টেম্বর শেষ তারিখ থাকলেও এবার তা বাড়িয়ে করা হয়েছে ৭ই অক্টোবর। সম্প্রতি শনিবার একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে রিজার্ভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার তরফ থেকে। সেই বিজ্ঞপ্তিতে রিজার্ভ ব্যাংক জানিয়েছে, ২০০০ টাকার নোট জমা দেওয়ার সময়সীমা এক সপ্তাহ বাড়ানো হলো। ৮ ই অক্টোবর যদি আপনারা ব্যাংকে যান তাহলে কিন্তু আর টাকা জমা করতে পারবেন না। তবে চিন্তা নেই সে ক্ষেত্রে আপনারা আরবিআই এর নির্দিষ্ট অফিসে এই নোট জমা করতে পারবেন।

Read More: বিদেশিনী ক্যাসমের গান কেন গান্ধী জয়ন্তীতে পোস্ট করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি! কে এই গায়িকা, কি তার পরিচয়?

এই প্রসঙ্গে আরো কয়েকটি বিষয় জানিয়ে রাখি যে,আরবিআইয়ের (RBI) যে নির্দিষ্ট ১৯টি অফিসে ২০০০ টাকার নোট জমা করা যাবে, সেখানে একজন আমানতকারী একটি সময়ে সর্বাধিক ২০,০০০ টাকাই জমা করতে পারবেন। অর্থাৎ, একবার লেনদেনে একজন গ্রাহক সর্বাধিক ১০টি ২০০০ টাকার নোটই আরবিআই অফিসে জমা করতে পারবেন। এবার কথা হচ্ছে এই টাকা ফেরত পাবেন কি করে? যদি আপনার কাছে এই 2 হাজার টাকার নোট থাকে এবং আপনি সেটা আরবিআই এর অফিসে জমা দিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে গ্রাহকের নিজস্ব ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সেই টাকা ‘ক্রেডিট’ করা যাবে।

Read More: iPhone 15 series এর সব ফোনে রয়েছে ঢালাও অফার।

আপনারা চাইলে অফিসে না গিয়ে সরাসরি ডাকযোগের মাধ্যমেও রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার অফিসে টাকা জমা করে দিতে পারেন।। তবে এই ডাকযোগের মাধ্যমে টাকা জমা দিতে চাইলে সরকারি কিছু নিয়মাবলী মেনে চলার পাশাপাশি আপনাকে অবশ্যই পরিচয় পত্র জমা দিতে হবে। তবে এই নিয়ম নীতি গুলি রয়েছে শুধুমাত্র সাধারণ মানুষের ক্ষেত্রে।আদালত, সরকারি দফতর, কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থাও আরবিআইয়ের মাধ্যমে ২০০০ টাকার নোট বদল করতে পারবে, সেক্ষেত্রে লেনদেনের কোনও নির্দিষ্ট সীমা থাকবে না। এই প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখি, আরবিআই গত ১৯ মে বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছিল, ২০০০ টাকার নোট বাজার থেকে তুলে নেওয়া হবে। ৩০ সেপ্টেম্বরের পর থেকে ওই নোট আর কার্যকর করা যাবে না। পরিসংখ্যান বলছে, সেই থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৩ লক্ষ ৪২ হাজার কোটি মূল্যের গোলাপি নোট ব্যাঙ্কে জমা পড়েছে। তবে এখনও বেশ কিছুটা বাকি আছে। এখনও অন্তত ১৪ হাজার কোটি মূল্যের ২০০০ টাকার নোট বাজারে ছড়িয়ে রয়েছে।