Health Tips : জেনে নিন হিমোগ্লোবিন বাড়ানোর দুর্দান্ত কিছু উপায়, কাজ করবে ম্যাজিকের মত

হিমোগ্লোবিন একটি লোহা সমৃদ্ধ প্রোটিন যা লোহিত রক্তকণিকায় পাওয়া যায় এবং এটি মানুষের রক্তের লাল রঙ তৈরি করে। শরীরের অক্সিজেন বহন এবং সমস্ত অংশে পরিবহনের জন্যেও হিমোগ্লোবিন দায়ী।

0
233
Health Tips : জেনে নিন হিমোগ্লোবিন বাড়ানোর দুর্দান্ত কিছু উপায়, কাজ করবে ম্যাজিকের মত
Health Tips : জেনে নিন হিমোগ্লোবিন বাড়ানোর দুর্দান্ত কিছু উপায়, কাজ করবে ম্যাজিকের মত

হিমোগ্লোবিন একটি লোহা সমৃদ্ধ প্রোটিন যা লোহিত রক্তকণিকায় পাওয়া যায় এবং এটি মানুষের রক্তের লাল রঙ তৈরি করে। শরীরের অক্সিজেন বহন এবং সমস্ত অংশে পরিবহনের জন্যেও হিমোগ্লোবিন দায়ী। অক্সিজেন পরিবহনের পাশাপাশি এটি কার্বন ডাই অক্সাইড কে কোষ থেকে দূরে এবং ফুসফুসে বহিষ্কারের জন্য বহন করে। মূলত হিমোগ্লোবিন একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রোটিন যা,একটি সুস্থ স্বাভাবিক মানুষের জীবন যাপনের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কমে গেলে শরীরে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের জন্য পর্যাপ্ত অক্সিজেন পাওয়া কঠিন হতে পারে। যার ফলে ক্লান্তি মাথা ঘোরা, শ্বাসকষ্ট থেকে শুরু করে নানান রকমের সমস্যা মানব দেহে লক্ষ্য করা যায়। রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ কমে যাওয়াকে অ্যানিমিয়া বলে। নিম্ন হিমোগ্লোবিন স্তর ভারতে কিন্তু খুব সাধারন বিশেষ করে মহিলাদের মধ্যে। প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষদের জন্য প্রয়োজনীয় হিমোগ্লোবিনের স্বাভাবিক মাত্রা প্রায় 14 থেকে 18 গ্রাম /ডিএল। অন্যদিকে প্রাপ্তবয়স্ক মহিলাদের জন্য এটি ১২ থেকে ১৬ গ্ৰাম/ডিএল। এইমাত্র থেকে কিছু কম হলে রক্তাল্পতা হতে পারে। তাই অবশ্যই আপনাকে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা উন্নত করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। চলুন তাহলে আপনাদের কয়েকটি জিনিস সম্পর্কে জানিয়ে দিয়ে যেগুলো আপনাদের দেহে হিমোগ্লোবিনের স্তর উন্নত রাখতে সাহায্য করবে।

বিটরুট:

বীটরুট প্রাকৃতিক আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, তামা, ফসফরাস এবং ভিটামিন বি১, বি২, বি৬, বি১২ এবং সি সমৃদ্ধ। এই বিস্ময়কর সবজির পুষ্টি উপাদান হিমোগ্লোবিনের সংখ্যা বাড়াতে এবং লোহিত রক্তকণিকার পুনর্জন্মে সাহায্য করে। এটি কাঁচা বা সালাদ হিসাবে খাওয়া যেতে পারে। বিকল্পভাবে, আপনি এমনকি এটি মিশ্রিত করতে পারেন এবং এক গ্লাস বিটরুটের রস প্রস্তুত করতে পারেন।

মোরিঙ্গা পাতা:

মরিঙ্গা পাতায় রয়েছে দস্তা, আয়রন, কপার, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন এ, বি এবং সি এর মতো খনিজ উপাদান। কয়েকটি সূক্ষ্মভাবে কাটা মোরিঙ্গা পাতা নিন এবং পেস্ট তৈরি করুন, এক চা চামচ গুড়ের গুঁড়া যোগ করুন এবং ভাল করে ব্লেন্ড করুন। আপনার হিমোগ্লোবিনের মাত্রা এবং লোহিত রক্তকণিকার সংখ্যা উন্নত করতে সকালের নাস্তার সাথে নিয়মিত এই চুর্ণ খান।

সবুজ শাক সবজি:

হিমোগ্লোবিন বাড়াতে সবুজ শাকসবজি যেমন পালং শাক, সরিষার শাক, সেলারি এবং ব্রকলি হল আয়রনের সমৃদ্ধ নিরামিষ উত্স। পালং শাক রান্না করার পরামর্শ দেওয়া হয় কারণ কাঁচা পাতায় অক্সালিক অ্যাসিড থাকে যা শরীরে আয়রন শোষণে বাধা দিতে পারে। এই শাক-সবুজ সবজিটি ভিটামিন B12, ফলিক অ্যাসিড এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টির একটি প্রাকৃতিক উত্স এবং আপনি যদি আপনার হিমোগ্লোবিন বাড়াতে চান তবে আপনার এটিকে আপনার প্রতিদিনের প্লেটারের একটি প্রধান অংশ করা উচিত।

ব্রোকলি:

আয়রন এবং বি-কমপ্লেক্স ভিটামিন ফলিক অ্যাসিডের একটি সমৃদ্ধ উৎস, এবং এছাড়াও এতে স্বাস্থ্যকর পরিমাণে অন্যান্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি যেমন ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন এ এবং সি রয়েছে। তাছাড়া, সবুজ শাকসবজিতে ক্যালোরি কম এবং খাদ্যতালিকাগত ফাইবারের ভালো উৎস। অতএব, তারা আপনাকে ওজন কমাতে এবং হজমের উন্নতিতেও সাহায্য করতে পারে।

Read More: Health Tips : রোজগার ডায়েটে রাখুন এই বিশেষ কয়েকটি সুপার ফুড, মস্তিষ্কের বিকাশ হবে দারুন।

খেজুর, কিশমিশ এবং ডুমুর:

খেজুর এবং কিসমিস আয়রন এবং ভিটামিন সি এর সংমিশ্রণ প্রদান করে। অন্যদিকে ডুমুর, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন এ এবং ফোলেটের গুণাগুণে ভরপুর। সকালে এক মুঠো শুকনো ডুমুর এবং কিশমিশ এবং দুই বা তিনটি খেজুর খাওয়া আপনাকে তাত্ক্ষণিক শক্তি সরবরাহ করতে পারে এবং আপনার হিমোগ্লোবিনের মাত্রা উন্নত করতে পারে। হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়াতে সপ্তাহে দুবার ঘুমানোর সময় ডুমুরের দুধ খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। ডায়াবেটিস রোগীদের এই ধরনের শুকনো ফল পরিমিত পরিমাণে খাওয়া উচিত।

তিল বীজ:

কালো তিলের বীজ খাওয়া আপনার আয়রন গ্রহণ বাড়ানোর আরেকটি দুর্দান্ত উপায় কারণ এতে আয়রন, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, কপার, জিঙ্ক, সেলেনিয়াম এবং ভিটামিন বি 6, ই এবং ফোলেট থাকে। আপনি এগুলিকে কিছু জলে ভিজিয়ে রাখতে পারেন এবং পরের দিন সকালে খাওয়ার আগে সারারাত রেখে দিতে পারেন। প্রায় 1 টেবিল চামচ শুকনো ভাজা কালো তিলের বীজ এক চা চামচ মধুর সাথে মিশিয়ে একটি বলের মধ্যে তৈরি করুন। আপনার আয়রনের মাত্রা বাড়াতে নিয়মিত এই পুষ্টিকর নাডু খান। আপনি আপনার সিরিয়াল বা ওটমিল বা এমনকি দই এবং ফলের সালাদগুলিতে কিছু ছিটিয়ে দিতে পারেন।

Read More: মোসাম্বি লেবু আমাদের সকলেরই বেশ প্রিয়। তবে আপনি কি জানেন এর ঔষধি গুনের ব্যাপারে?

বাড়িতে আপনার হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়ানোর জন্য অন্যান্য টিপস:

ফলের উপর নির্ভর করুন: এপ্রিকট, আপেল, আঙ্গুর, কলা, ডালিম এবং তরমুজ হিমোগ্লোবিনের সংখ্যা বাড়াতে খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়ানোর ক্ষেত্রে আপেল একটি সুস্বাদু এবং উপযুক্ত বিকল্প কারণ সেগুলি সেখানকার সবচেয়ে আয়রন সমৃদ্ধ ফলগুলির মধ্যে একটি। ডালিম প্রোটিন এবং ফাইবারের পাশাপাশি আয়রন এবং ক্যালসিয়াম উভয়েরই একটি সমৃদ্ধ উৎস। এর পুষ্টির মান এটিকে হিমোগ্লোবিনের নিম্ন স্তরের লোকেদের জন্য একটি নিখুঁত উত্স করে তোলে। আপনার সিরিয়াল বা ওটমিলের বাটিতে হিমোগ্লোবিন বাড়ানোর জন্য এই ফলগুলি যোগ করুন, অথবা সামান্য মিষ্টির জন্য এগুলিকে আপনার সালাদে যোগ করুন বা আপনার মিল্কশেক, স্মুদি বা ফলের রসে রাখুন।

লোহার পাত্রে রান্না করা খাবার গ্রহণ করুন: এর কারণ হল একটি লোহার পাত্র আপনার খাবারকে আয়রন দিয়ে মজবুত করে, যা হিমোগ্লোবিনের কম মাত্রায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য এটি শক্তিশালী করে তোলে।

ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবারের সাহায্য নিন: আপনার খাদ্যতালিকায় ভিটামিন সি অন্তর্ভুক্ত করুন কারণ এটি আপনার শরীরকে আরও দক্ষতার সাথে আয়রন শোষণ করতে সাহায্য করে। বেশি করে গুজবেরি, কমলা, লেবু, মিষ্টি চুন খান,স্ট্রবেরি, বেল মরিচ, টমেটো, জাম্বুরা, বেরি, কারণ এগুলিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে। নিয়মিত ভিটামিন সি-এর এই প্রাকৃতিক উত্সগুলি খাওয়ার অভ্যাস করুন।

আয়রন ব্লকার এড়িয়ে চলুন: আপনার শরীরে আয়রন শোষণে বাধা দেয় এমন খাবার খাওয়া বন্ধ করুন, বিশেষ করে যদি আপনার হিমোগ্লোবিনের সংখ্যা কম থাকে। পলিফেনল, ট্যানিন, ফাইটেট এবং অক্সালিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ হিমোগ্লোবিন খাবার যেমন চা, কফি, কোকো, সয়া পণ্য, ওয়াইন, বিয়ার, কোলা এবং বায়ুযুক্ত পানীয় গ্রহণ সীমিত করুন।

Read More: সর্দি এবং কাশি থেকে রেহাই পেতে আজই ট্রাই করুন এই কয়েকটি আয়ুর্বেদিক ঘরোয়া প্রতিকার, রইল বিস্তারিত